February 23, 2024

নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ কি: ১৫ টি অবশ্য পালনীয় কাজ, বেতন-ভাতা, পদোন্নতি ও অন্যান্য সুবিধাদি।

নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ কি
নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ কি

নিরাপত্তা প্রহরী কাকে বলে/সিকিউরিটি গার্ড কাকে বলে

নিরাপত্তা প্রহরী হল এমন একজন ব্যক্তি যাকে সম্পত্তি এবং সম্পদের সুরক্ষার জন্য নিয়োগ করা হয়। সে সম্পত্তি এবং সম্পদের পর্যবেক্ষণ করে, নিয়ম প্রয়োগ করে, অপরাধ প্রতিরোধ করে এবং ঘটনা বা জরুরী পরিস্থিতিতে সাড়া দেয়।

ডিসি অফিসের সরকারি হাই স্কুলের নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ কি/একজন নিরাপত্তা প্রহরীর দায়িত্ব ও কর্তব্য কি/সিকিউরিটি গার্ডের প্রধান কাজ কি/সিকিউরিটি গার্ডের দায়িত্ব কি?

  1. অপরাধমূলক আচরণ রোধ করা এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখা।
  2. অফিসের সম্পত্তির নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।
  3. অফিসে সকল প্রকার অনুমতিহীন প্রবেশ রোধ করা।
  4. সকল কমকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকগন তাদের স্ব স্ব আইডি কার্ড প্রদর্শন করে প্রবেশ করছে কিনা নিশ্চিত করা।
  5. যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে আগন্তুক ও পরিদর্শক প্রবেশ নিশ্চিত করা।
  6. আগন্তুক ও পরিদর্শক প্রবেশের সময় নির্দিষ্ট ভিজিটর’স বুকে তাদের সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য লিপিবদ্ধ করা। ও তাদেরকে ভিজিটর’স আইডি কার্ড প্রদান করা।
  7. সংরক্ষিত এলাকায় বিনা তল্লাশীতে কোন ব্যাগ / ব্রিফকেস / লাঞ্চ বক্স নিয়ে প্রবেশ যাতে না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা।
  8. কোন প্রকার বেআইনি কর্মকান্ড দেখা দিলে সাথে সাথে কর্তৃপক্ষকে অবগত করা।
  9. বাইরে থেকে কেউ আসলে তাকে সঠিক তথ্য দিয়ে সাহায্য করা।
  10. কেবলমাত্র অনুমোদিত ব্যক্তিবর্গকে চিহ্নিত করার মাধ্যমে অফিসে ঢুকতে দেওয়া হয়।
  11. অফিস চলাকালীন সকলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।
  12. ভবনের চারদিকে নিরাপত্তা বাতিগুলো যেন জ্বালানো থাকে তা খেয়াল রাখা।
  13. অফিস বন্ধের পর সকল দরজা-জানালাগুলো বন্ধ করা ও তালাবদ্ধ করা।
সিকিউরিটি গার্ড এর কাজ কি
নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ কি

নিরাপত্তা প্রহরীর বেতন কত?

নিরাপত্তা প্রহরীরা যেহেতু ২০ তম গ্রেডে জয়েন করে সেহেতু তাদের মূল বেতন দেয়া হয় ৮,২৫০/- টাকা। প্রতি বছর বেতন বৃদ্ধি পায় ৫%। প্রতি বছর জুলাই মাসে বেতন বৃুদ্ধি পায়।

১ বছর পর ৫% বৃদ্ধি পেলে তা হবে: ৮২৫০+ (৮২৫০×৫%)=৮৬৬২/- টাকা

২ বছর পর ৫% বৃদ্ধি পেলে তা হবে: ৮৬৬২+ (৮৬৬২×৫%)=৯০৯৫/- টাকা

মূলবেতন বৃদ্ধির সাথে সাথে বাড়িভাড়াও বৃদ্ধি পাবে

অঞ্চলভেদে বেতন ভিন্ন হয়ে থাকে।

ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এ বেতন:

মূল বেতন: ৮,২৫০/- টাকা

বাড়ি ভাড়া: মূলবেতনের ৬৫%= ৮২৫০×৬৫%=৫৩৬২/- টাকা

চিকিৎসা ভাতা: ১৫০০/- টাকা

টিফিন ভাতা: ২০০/- টাকা

যাতায়াত ভাতা: ৩০০/- টাকা

শিক্ষা সহায়ক ভাতা: ৫০০/- টাকা ( প্রতি সন্তান) সর্বোচ্চ ২ জন (১০০০ টাকা)

তাহলে প্রতিমাসে বেতন:

৮২৫০+৫৩৬২+১৫০০+২০০+৩০০+১০০০=১৬,৫১২/- টাকা

অন্যান্য সিটি কর্পোরেশন ও সাভার পৌর এলাকাতে বেতন:

মূল বেতন: ৮,২৫০/- টাকা

বাড়ি ভাড়া: মূলবেতনের ৫৫%= ৮২৫০×৫৫%=৪৫৩৭/- টাকা

চিকিৎসা ভাতা: ১৫০০/- টাকা

টিফিন ভাতা: ২০০/- টাকা

যাতায়াত ভাতা: ৩০০/- টাকা

শিক্ষা সহায়ক ভাতা: ৫০০/- টাকা ( প্রতি সন্তান) সর্বোচ্চ ২ জন (১০০০ টাকা)

তাহলে প্রতিমাসে বেতন:

৮২৫০+৪৫৩৭+১৫০০+২০০+৩০০+১০০০=১৫,৭৮৭/- টাকা

জেলা শহরে বেতন:

মূল বেতন: ৮,২৫০/- টাকা

বাড়ি ভাড়া: মূলবেতনের ৫০%= ৮২৫০×৫০%=৪১২৫/- টাকা

চিকিৎসা ভাতা: ১৫০০/- টাকা

টিফিন ভাতা: ২০০/- টাকা

যাতায়াত ভাতা: ৩০০/- টাকা

শিক্ষা সহায়ক ভাতা: ৫০০/- টাকা ( প্রতি সন্তান) সর্বোচ্চ ২ জন (১০০০ টাকা)

তাহলে প্রতি মাসে বেতন:

৮২৫০+৪১২৫+১৫০০+২০০+৩০০+১০০০=১৫,৩৭৫/- টাকা

আরো কিছু ভাতা:

উৎসব ভাতা: মূল বেতন এর সমান ( বছরে ২ টা)

বাংলা নববর্ষ: মূল বেতনের ২০%

শ্রান্তি বিনোদন ভাতা: মূল বেতন এর সমান (৩ বছরে ১ বার)

অবসরকালীন ভাতা:

অবসরে যাওয়ার পর ৩ টি ভাতা পাওয়া যায়:

১. মাসিক পেনশন।

২. ল্যামগ্রান্ট।

৩. এককালীন আনুতোষিক 

পেনশন:

অবসরে যাওয়ার পর আপনি প্রতি মাসে যে টাকা পাবেন সেটাই পেনশন।

পেনশন নির্ধারণের পদ্ধতিঃ

সূত্র: {সর্বশেষ মূলবেতন x সর্বমোট চাকরির জন্য পেনশনের নির্ধারিত হার (%) }÷ ২ = মোট টাকা।

পেনশনের হারঃ

চাকরিকাল ৫ বছর হলে ২১%, পেনশন প্রাপ্ত হবেন।

চাকরিকাল ১০ বছর হলে ৩৬% পেনশন প্রাপ্ত হবেন।

চাকরিকাল ১৫ বছর হলে ৫৪% পেনশন প্রাপ্ত হবেন।

চাকরিকাল ২০ বছর হলে ৭২% পেনশন প্রাপ্ত হবেন।

চাকরিকাল ২৫ বছর হলে ৯০% পেনশন প্রাপ্ত হবেন।

উদাহরণ-

আপনি ‍যদি ২৫ বছরের বেশি সময় চাকরি করেন এবং বিনা বেতনে কোন ছুটি ভোগ না করে থাকেন এবং আপনার সর্বশেষ মূল বেতন ৪০,০০০ টাকা হয় তাহলে পেনশন পাবেন:

(৪০০০০×৯০%)÷২=১৮,০০০/- টাকা

ল্যামগ্রান্ট:

ল্যামগ্রান্ট হিসাব নির্ধারণের পদ্ধতিঃ

সূত্র: চাকরিতে সর্বশেষ মূলবেতন x চাকরিতে অর্জিত ছুটি (সর্বোচ্চ ১৮ মাস)= মোট টাকা

উদাহরণ- ধরি, আপনার সর্বশেষ মূল বেতন ৪০,০০০ টাকা।

তাহলে ল্যাগ্রান্ট পাবেন:

৪০,০০০×১৮=৭,২০,০০০/- টাকা

এককালীন আনুতোষিক:

আনুতোষিক নির্ধারণের পদ্ধতিঃ

সূত্র: [{সর্বশেষ মূলবেতন x সর্বমোট চাকরির জন্য পেনশনের নির্ধারিত হার (%)} ÷ ২]x আনুতোষিকের নির্ধারিত হার = মোট টাকা।

উদাহরণ- ধরি, আপনার সর্বশেষ মূল বেতন ৪০,০০০ টাকা। তাহলে

(৪০০০০×৯০%)÷২=১৮,০০০/- টাকা

বর্তমানে আনুতোষিকের নির্ধারিত হার ২৩০ টাকা।

তাহলে মোট আনুতোষিক:

১৮০০০×২৩০=৪১,৪০,০০০/- টাকা

একজন নিরাপত্তা প্রহরীর দায়িত্ব ও কর্তব্য কি?

নিরাপত্তা কর্মী এর ইংরেজি

নিরাপত্তা কর্মী এর ইংরেজি হচ্ছে SECURITY GUARD.

নিরাপত্তা প্রহরী পদোন্নতি

নিরাপত্তা প্রহরীর পদোন্নতি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *